অক্টোবরেই বাজারে আসবে করোনার ভ্যাকসিন!

প্রকাশিত: 1:34 PM, June 5, 2020

করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে সারা বিশ্বে। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ মারা যাচ্ছেন এই মারণ রোগে। কিন্তু কোনো ধরনের ওষুধ কিংবা ভ্যাকসিন উদ্ভাবন করা সম্ভব হয়নি এখনো। তবে আশার কথা শোনাল সেরাম ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়া (এসআইআই)। তাদের দাবি, সব ঠিক থাকলে আগামী দুই থেকে তিন সপ্তাহের মধ্যে ভারতে করোনার ভ্যাকসিন উৎপাদন শুরু হয়ে যাবে।
সংস্থাটি জানিয়েছে, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যৌথভাবে ভারতে তারা কভিড ভ্যাকসিন তৈরি করবে। আর পরিকল্পনা মাফিক কাজ এগোলে আগামী অক্টোবরের মধ্যেই ভারতের বাজারে এই মারণ ভাইরাসের টিকা চলে আসবে বলেও আশ্বস্ত করেছেন তারা।
করোনার টিকার অপেক্ষায় পথ চেয়ে আছে গোটা বিশ্ব। ভ্যাকসিন আবিষ্কার না হওয়া পর্যন্ত এই মারণ রোগ থেকে মুক্ত হওয়ার কোনো আশা নেই বলে মন্তব্য করেছেন জাতিসংঘের প্রধান। এমন এক সময়ে বিভিন্ন মহলে আশা জাগিয়ে ভ্যাকসিন তৈরির লক্ষ্যে এরই মধ্যে বেশ কয়েক দাপ এগিয়ে গিয়েছেন অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা।

মানব শরীরে এর ট্রায়াল শুরু হয়ে গিয়েছে। অক্সফোর্ডের এই গবেষণায় বিশ্বের যে সাতটি প্রতিষ্ঠান যুক্ত হয়েছে তার মধ্যে অন্যতম ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট। অক্সফোর্ডের গবেষকদের সঙ্গে প্রতিনিয়ত কাজ করে চলেছেন পুনের এই সংস্থার বিজ্ঞানীরাও।
সেরাম ইনস্টিটিউটের সিইও আদর পুনাওয়ালা বলেন, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞ ডক্টর হিলের সঙ্গে আমাদের দল কাজ শুরু করেছে। আগামী ২ থেকে ৩ সপ্তাহের মধ্যে ভ্যাকসিন উৎপাদন শুরু করা সম্ভব হবে বলে আমাদের প্রত্যাশা। এর পরে প্রাথমিকভাবে প্রথম ছয় মাসের মধ্যে আমরা ৫০ লাখ ডোজ উৎপাদন করতে পারব। এর পরে বাড়িয়ে মাসে এক কোটি ডোজ করোনা ভ্যাকসিন উৎপাদন করার সক্ষমতা আমরা অর্জন করব।
আদর পুনাওয়ালা আরো বলেন, মানব শরীরে পরীক্ষামূলক প্রয়োগে সব ধরনের মানদণ্ড সফলভাবে শেষ হলে আগামী সেপ্টেম্বর থেকে অক্টোবর মাসের মধ্যে ভারতের বাজারে করোনার প্রতিষেধক চলে আসবে বলে আমাদের প্রত্য়াশা। আগামী দুই থেকে তিন সপ্তাহ পরে আমরা এই ভ্যাকসিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু করতে পারব বলে আশা করা যায়।