করোনার চেয়ে ভয়াবহ নতুন রোগের উপসর্গ; ভয় শিশুদের

প্রকাশিত: 12:30 AM, June 4, 2020

করোনায় বিধ্বস্ত সারা পৃথিবী। হন্যে হয়ে বিজ্ঞানী ও চিকিৎসকেরা রোগ মুক্তির পথ খুঁজে চলেছেন। কিন্তু এই মরণ ভাইরাস নিয়ে প্রতিনিয়ত উঠে আসছে নতুন নতুন তথ্য। কোভিড-১৯-এর প্রাথমিক উপসর্গের মধ্যে যুক্ত হচ্ছে নানা অসুখ। এর মধ্যেই ইউরোপ এবং উত্তর আমেরিকার বেশ কয়েকটি দেশে করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যু হওয়া শতাধিক শিশুদের মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে আর একটি বিরল অসুখ- Kawasaki Disease Syndrome. করোনা পজিটিভ বহু শিশুর শরীরে মিলছে এই রোগের লক্ষণ!

কী এই অসুখ?
গত ১৫ মে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ইউরোপ ও উত্তর আমেরিকার কিছু অসুস্থ শিশু ও কিশোরের ইনটেন্সিভ কেয়ারে রেখে চিকিৎসার প্রয়োজন পড়ছে। কোভিড-১৯ এর আবহে বিভিন্ন উপসর্গের সঙ্গে ওই শিশুদের শরীরে এমন রোগের লক্ষণ পাওয়া যাচ্ছে যার Kawasaki Disease -এর সঙ্গে মিল রয়েছে।
করোনা বিধ্বস্ত ব্রিটেনে এপ্রিলের শেষে স্বাস্থ্য দফতর থেকে সতর্কবাণী করা হয়েছে ‘মাল্টি ইনফ্ল্যামেটরি’ কেস ক্রমশ বাড়ছে শিশুদের মধ্যে। কোভিড-১৯ পজিটিভ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া বহু শিশুর মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে Kawasaki Disease Syndrome.
এছাড়া ফ্রান্স, ইতালি, স্পেন এবং আমেরিকা থেকেও এই রোগের খবর পাওয়া যাচ্ছে। দেখা যাচ্ছে, করোনা আক্রান্ত শিশুরা ইতিমধ্যে আক্রান্ত ছিল এমন অসুখে, যার লক্ষণের সঙ্গে বহু মিল রয়েছে Kawasaki Disease নামে বিরল অসুখের। বিভিন্ন বিদেশি সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত ফ্রান্সের এক নয় বছরের কিশোর কার্ডিয়াক অ্যারেস্টে মারা যায়। তার শরীরেও কাওয়াসাকি সিন্ড্রোম মিলেছে। নিউইয়র্কেও তিনটি শিশু এই ‘নতুনভাবে বৃদ্ধি পাওয়া’ রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছে বলে খবর।
Kawasaki Disease -এর লক্ষণ কী?

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) জানাচ্ছে, কাওয়াসাকি ডিজিসের কয়েকটি প্রাথমিক লক্ষণ হল, জ্বর, প্রদাহ, হাইপোটেনশন ও কাঁপুনি।
নিউইয়র্ক স্বাস্থ্য দফতর এই নতুন রোগের লক্ষণের মধ্যে চিহ্নিত করেছে, কয়েকদিন ধরে তীব্র পেট ব্যথা, স্কিন র‍্যাশ, চোখ লাল হয়ে যাওয়া, হৃদস্পন্দন দ্রুত হওয়া সহ বেশ কিছু লক্ষণ। ব্রিটেনের রয়্যাল কলেজ অফ পেডিয়াট্রিক্স অ্যান্ড চাইল্ড হেলথের তরফে যে রোগ লক্ষণগুলি চিহ্নিত করা হয়েছে, তাতে রয়েছে শিশু ও কিশোরদের মধ্যে তীব্র জ্বর, পেটের ব্যথা, কনজাংটিভাইটিস, ডায়রিয়া, গলা ব্যথা, ত্বকে র‍্যাশ বেরনো এবং বমির মতো সমস্যা। এই সব লক্ষণের সঙ্গে কাওয়াসাকি ডিজিসের ব্যাপক মিল আছে। যার ফলে রক্তনালী ও ধমনি ফুলে যায় এবং শরীরে বিভিন্ন জটিলতা সৃষ্টি করে।

ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ার কাওয়াসাকি ডিজিস রিসার্চ সেন্টারের তরফে জানানো হয়েছে, এই রোগের কয়েকটি লক্ষণের মধ্যে রয়েছে জ্বর, চোখ ও ঠোঁট লাল হওয়া, জিভ লাল হওয়া, শরীরে র‍্যাশ, হাত ও পায়ের ত্বক লালবর্ণ হয়ে ফুলে যাওয়া, লসিকাগ্রন্থি ফুলে যাওয়া ইত্যাদি।
কেন এই নামকরণ?

Kawasaki Syndrome -এর ইতিহাস ঘেঁটে জানা যাচ্ছে, ১৯৬১ সালে টোকিওর রেড ক্রস হাসপাতালে এক বছর চারেকের শিশুকে হার্টের অসুখ, জ্বর ও র‍্যাশ- সহ নানা উপসর্গ নিয়ে ভর্তি করা হয়। তারপর প্রায় এমনই রোগে আক্রান্ত হয় অন্তত ৫০ জন শিশু। তাদের রোগ লক্ষণ নিয়ে প্রথম গবেষণা করেন তোমিশাকু কাওয়াসাকি নামে জাপানের এক শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ। ১৯৭৪ সালে এই রোগ নিয়ে কাওয়াসাকি ও তাঁর সহকর্মীদের একটি গবেষণাপত্র প্রকাশ্যে আসে। সত্তরের দশকে এই একই রোগে আক্রান্ত হয় বিভিন্ন দেশের শিশুরা। কাওয়াসাকির নাম অনুসারেই এই নয়া অসুখ পরিচিত হয় কাওয়াসাকি সিন্ড্রোম নামে।
‘নতুন’ রোগ লক্ষণের সঙ্গে কোভিড-১৯ এর সম্পর্ক কী?
করোনা বিধ্বস্ত ইউরোপ ও আমেরিকার দেশগুলিতে আক্রান্তের শরীরে করোনা উপসর্গের সঙ্গে সঙ্গে আরও কিছু লক্ষণ পাওয়া যাচ্ছে। যা কাওয়াসাকি সিন্ড্রোম নামে বিরল অসুখের মিলে যায়। এই অসুখে মূলত শিশু ও কিশোরেরাই আক্রান্ত হয়।
ফ্রান্স জানিয়েছে, সে দেশে ১৪৪ জনের মধ্যে একটি ‘টিপিকাল পেডিয়াট্রিক ডিজিস’ পাওয়া গিয়েছে। মার্চ মাস থেকে আক্রান্ত হওয়া এই ১৪৪ জনের বয়স পাঁচ থেকে কুড়ি বছর! বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, আক্রান্তদের রক্তের নমুনা ল্যাব টেস্ট করে প্রাথমিক ধারণা করা হচ্ছে, কোভিড-১৯ এর সঙ্গে এই রোগ লক্ষণের সম্পর্ক আছে।
করোনা আবহে আরও একটি রোগের প্রাদুর্ভাব?

আপাতভাবে এই অসুখ কতটা মারাত্মক তা ঠিকঠাক জানা না গেলেও রিপোর্ট বলছে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা যাকে ‘মাইল্ড ডিজিস’ (mild disease) বলছে, তাতেই গত একমাসে শতাধিক শিশু মারা গিয়েছে।
রয়্যাল কলেজ অফ পেডিয়াট্রিক্স অ্যান্ড চাইল্ড হেলথের প্রধান রাসেল ভাইনার জানাচ্ছেন, কোভিড-১৯ এর সঙ্গে এই রোগ লক্ষণ নিয়ে ধরা পড়া রোগীর সংখ্যা খুবই কম। তাঁর কথায়, মনে রাখা দরকার ইউরোপের বিশাল জনসংখ্যায় করোনা আক্রান্তদের মধ্যে যে শিশুদের শরীরে এই রোগ দেখা যাচ্ছে তার সংখ্যা খুবই কম। তাই অযথা বাবা-মায়েরা আতঙ্কিত হবেন না। তবুও এই সিনড্রোম এবং করোনার সম্পর্ক নিয়ে জানার জন্য জোরদার চেষ্টা চলছে।