কলবাগানে স্কুলছাত্রী হত্যা: জড়িত না থাকায় দিহানের ৩ বন্ধুকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ

প্রকাশিত: 7:22 PM, January 9, 2021

রাজধানীর কলাবাগানে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় স্কুলছাত্রী নিহত হওয়ার ঘটনায় আটক তিন তরুণকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ।

শনিবার (৯ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রমনা জোনের উপ-পুলিশ (ডিসি) কমিশনার সাজ্জাদ হোসেন।

তিনি বলেন, দিহানের তিন বন্ধুর বিরুদ্ধে প্রাথমিকভাবে ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া যায়নি। শুক্রবার রাতেই তাদের জিজ্ঞাসাবাদের পর ছেড়ে দেওয়া হয়। এছাড়া মামলার এজাহারে ও দিহান ছাড়া অন্য কাউকে আসামি করা হয়নি। আসামি দিহানও আদালতে বলেছে তার তিন বন্ধু এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত নয়। আসামি নিজেই এ ঘটনা ঘটিয়েছে।

ডিসি সাজ্জাদ হোসেন বলেন, তাদের বিরুদ্ধে জড়িত থাকার কোনও সত্যতা না পাওয়ায় তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়। মুচলেকা দিয়ে পরিবারের সদস্যদের কাছে তুলে দেওয়া হয় ৩ জনকে। তবে তদন্তের স্বার্থে যেকোনও তথ্যের জন্য জিজ্ঞাসাবাদে তাদের ডাকা হতে পারে বলেও জানান সাজ্জাদ হোসেন।

পুলিশ জানায়, স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ ও হত্যা ঘটনায় প্রাথমিকভাবে ওই তিন তরুণের সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় শুক্রবার রাতে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে। তবে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় করা মামলার একমাত্র আসামি ও ছাত্রীটির বন্ধু ফারদিন ইফতেখার ওরফে দিহান গতকাল শুক্রবার আদালতে নিজের দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন। তিনি এখন কারাগারে।

এদিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গে ময়নাতদন্ত শেষে ওই স্কুলছাত্রীর মরদেহ শনিবার ভোরে তার গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়ার সদর উপজেলার গোপালপুরে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার দুপুরে আনোয়ার খান মর্ডান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কলাবাগান থানায় ফোন করে জানায়, এক তরুণ এক কিশোরীকে হাসপাতালে মৃত অবস্থায় এনেছেন। কিশোরীর শরীর থেকে রক্ত বের হচ্ছে। কলাবাগান থানার পুলিশ হাসপাতালে গিয়ে ফারদিন আটক করে। খবর পেয়ে তরুণটির তিন বন্ধ হাসপাতালে গেলে পুলিশ তাদের আটক করে। এর আগে ফারদিন মেয়েটির মাকে ফোন করে জানায়।