কুমিল্লার বরুড়ায় নরিন্দ মহিলা মাদ্রাসায় দুই দিনে তিন শিশু ধর্ষণ

প্রকাশিত: ৯:৩৭ অপরাহ্ণ, মার্চ ২১, ২০২২

বরুড়ায় নরিন্দ মহিলা মাদরাসার দুই দিনে তিন শিশু ধর্ষনের অভিযোগ উঠেছে। বরুড়া উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নের নরিন্দ মিজবাহুল উলুম ও নূরানী মাদ্রাসার তিন শিক্ষার্থী কে একই এলাকার লম্পট আলী আকবর(৫০) জোড় পূর্বক ধর্ষণ করে। গত ২০শে মার্চ বিকাল আনুমানিক সাড়ে চারটায় নূরানী দ্বিতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থী ও তার আগে পর পর দুইদিন একই প্রতিষ্ঠানের নূুরানী প্রথম শ্রেণীর আরো দুই শিক্ষার্থী কেও জোড়পূর্বক একই ব্যাক্তি কতৃক ধর্ষিত হওয়ার ঘটনা ঘটার খবর ছড়িয়ে পরলে মাদ্রাসার সকল শিক্ষকদের উপস্থিতিতে ধামাচাপা দিতে স্থানীয় ভাবে ধর্ষক আলী আকবর কে জুতা পেটা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয় আর এই ঘটনা সাথে সাথে এই খবর এলাকায় ছড়িয়ে পরে ।জানা যায় নূরানী দ্বিতীয় শ্রেণীর ১০বছর বয়সী এক শিক্ষার্থী কে ঝাল মুড়ী খাওয়ার কথা বলে জোরপূর্বক গোয়াল ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করে আলী আকবর ।

আবার নূরানী প্রথম শ্রেণীর দুই বোন পর পর দুই দিন ধর্ষণ হওয়ার খবর পাওয়া যায় একই ব্যাক্তি কতৃক।এই দুই ভিকটিমের মামাতো বোন খবর পেয়ে ফোন করে ভিকটিমের মাকে আর তখন মা মাদ্রাসায় পৌঁছলে ধর্ষকের ছেলে মোঃ আনাছ ভিকটিমের মাকে হুমকি ধমকি প্রদর্শন করে। পরবর্তীতে ৯৯৯ এর মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পৌঁছলে ধর্ষকের ছেলে পালিয়ে যায়। ভিকটিমদ্বয় তাদের মাকে যানায় পর পর দুইদিন একই কৌশলে বিস্কুট খাওয়ার কথা বলে আলী আকবর গোয়াল ঘরে নিয়ে জোর করে ধর্ষন করে ভিকটিমদ্বয় কে। এই ঘটনার পর ভিকটিমদের প্রথমে বরুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান শেষে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে প্রেরণ করা হয় এবং চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয়। এই ঘটনায় আলী আকবরের নামে পৃথক দুটি মামলা হয়েছে।
এ ব্যাপারে বরুড়া থানা পুলিশ অফিসার ইকবাল বাহার মজুমদার বলেন আমরা খবর পাওয়ার সাথে সাথে ঘটনাস্থলে ফোর্স প্রেরণ করে অভিযান পরিচালনা করি,ধর্ষক আলী আকবর কে গ্রেফতার করতে অভিযান চলছে।