কৃষকরা বাঁচলে,বাঁচবে বাংলাদেশ;কৃষকলীগের বর্ধিত সভায় কল্যাণ মিত্র বড়ুয়া

প্রকাশিত: ৩:৪৫ অপরাহ্ণ, জুন ১৯, ২০২২

খোকন বিকাশ ত্রিপুরা জ্যাক,খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:

“কৃষক বাঁচাও,দেশ বাঁচাও” এই স্লোগানকে সামনে রেখে বাংলাদেশ কৃষক লীগ খাগড়াছড়ি জেলা শাখার আয়োজনে বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
রবিবার(১৮জুন)দুপুর ১২টার দিকে জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ের হলরুমে এ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়।এ সময় খাগড়াছড়ি জেলা কৃষক লীগের আহ্বায়ক পিন্টু ভট্টাচার্য্য’র সভাপতিত্বে উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কৃষক লীগ’র কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আকবর আলী চৌধুরী ও প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদের সদস্য কল্যাণ মিত্র বড়ুয়া।

এ সভায় জানা যায়,খাগড়াছড়িতে ৯টি উপজেলার মধ্যে ৫টি উপজেলা কমিটি গঠিত হয়েছে।বাকি ৪টি কমিটি সেপ্টেম্বর মাসের ভিতরে গঠন করতে হবে।দীঘিনালায় আগামী ৭জুলাই কর্মী সভা অনুষ্ঠিত হবে।সম্মেলন ৭ই সেপ্টেম্বর।পানছড়িতে সেপ্টেম্বর মাসে ২তারিখ। মাটিরাঙ্গা উপজেলা ৫জুলাই বর্ধিত সভা।রামগড় উপজেলা,মানিকছড়ি উপজেলা,লক্ষীছড়ি উপজেলা কমিটিদের কর্মী সভার নির্ধারিত সময় আলোচনার মাধ্যমে সময় নির্ধারন করা হবে বলে জানান কৃষক লীগের নেতারা।
খাগড়াছড়ি জেলা কৃষক লীগ’র সম্মেলন আগামী ২৪সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হবে জানান প্রধান বক্তা কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের দপ্তর সম্পাদক রেজাউল করিম রেজা।

বর্ধিত সভায় জেলা কৃষক লীগের সদস্য সচিব ও সাধারণ সম্পাদক খোকন চাকমা’র সঞ্চালনায় অতিথি বক্তারা বলেন,আজকে বৈরি আবহাওয়াকে উপেক্ষা করে যারা এই বর্ধিত সভায় এসেছেন।সভাকে সুন্দরভাবে সাজিয়েছেন তাদের সকলের প্রতি অসংখ্য ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানায়।বাংলাদেশ কৃষক লীগ এদেশের মাটি ও মানুষের কথা বলে।দেশের জন্য কাজ করে যাচ্ছে।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য খাগড়াছড়ি জেলার কৃষক লীগ অক্লান্ত পরিশ্রম ও গঠনতন্ত্র অনুযায়ী কাজ করে যাচ্ছে।এটা আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি।বাংলাদেশ কৃষক লীগ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন।এ সংগঠন বাংলাদেশ কৃষক লীগের একটি শক্তিশালী সংগঠন।শেখ হাসিনা বলেছিলেন আমার পিতা বাংলাদেশ কৃষক লীগের সুসংগঠিত করতে চেয়েছেন।আমি তার ওয়াদা অক্ষরে অক্ষরে পালন করবে।আমার কৃষক আছে বলেই আওয়ামী লীগ আছে। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনকে ঘিরে দলকেও সুসংগঠিত ও শক্তিশালী করতে কাজ করছে কৃষক লীগ। সারাদেশের ৭৮ সাংগঠনিক জেলার কমিটির সাংগঠনিক কার্যক্রম বেশ গুরুত্ব দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে সংগঠনটি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কল্যাণ মিত্র বড়ুয়া বলেন,কৃষকেরা বাঁচলে বাঁচবে বাংলাদেশ।কৃষক লীগ আওয়ামী লীগের একটি উল্লেখযোগ্য সংগঠন।আমাদের খাগড়াছড়ি ৬৪টি জেলায় মানুষ বসবাস করে।নানান ধর্মের মানুষ এ জেলা বসবাস করে।বাংলাদেশ আওয়ামী কৃষক লীগ সৃষ্টি হওয়ার পর থেকেই কৃষকদের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। শেখ হাসিনার ভিশন বাস্তবায়ন, ক্ষমতার ধারাবাহিকতা রক্ষায় সংগঠনটি ভূমিকা রাখছে।নামে কৃষক লীগ হলেও তারা শুধু কৃষকদের জন্য কাজ করেনি। করোনাকালে সারাদেশে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন সারাদেশসহ খাগড়াছড়ি জেলার এ সংগঠনের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা। পাশাপাশি কৃষকের ধান কেটে বাড়িতে তুলে দেওয়া, অসহায় মানুষের বাড়িতে বাড়িতে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছানো, দুস্থ, দিনমজুর খেঁটেখাওয়া মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ থেকে শুরু করে সকল কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছেন সংগঠনটির নেতাকর্মীরা।

এ সময় প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কৃষক লীগের দপ্তর সম্পাদক রেজাউল করিম রেজা,বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কৃষক লীগ’র স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডভোকেট উম্মে হাবিবা,সহ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক আরমান চৌধুরী,জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক শওকত উল ইসলাম,কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মোতাহার হোসেন বাবুল প্রমুখ।