খাগড়াছড়িতে পরিবার কল্যাণ সেবা ও প্রচার সপ্তাহের সমাপনী অনুষ্ঠান

প্রকাশিত: ৪:২০ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৪, ২০২১

খোকন বিকাশ ত্রিপুরা জ্যাক,খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ি জেলা পরিবার-পরিকল্পনা বিভাগ কর্তৃক আয়োজিত এবং আমাদের জীবন, আমাদের স্বাস্থ্য, আমাদের ভবিষ্যৎ প্রকল্প, জাবারাং কল্যাণ সমিতি’র সহযোগিতায় ভাইবোনছড়া ইউনিয়নে পরিবার ও স্বাস্থ্য কেন্দ্র এবং মায়াবিনী লেকে পরিবার কল্যাণ সেবা ও প্রচার সপ্তাহের সমাপনী দিনে কৈশোরকালীন প্রজনন স্বাস্থ্য সেবা বিষয়ে অবহিতকরণ অনুষ্ঠিত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার(২৩ডিসেম্বর) সকালে ইউনিয়নের স্বাস্থ্য ও পরিবার কেন্দ্রের হলরুমে কৈশোরীদের মাঝে প্রজনন স্বাস্থ্য বিষয়ে অবহহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।এতে সদর উপজেলার পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সোহাগ ময় চাকমা’র সভাপতিত্বে
প্রধানঅতিথি হিসেবে উপস্থিত
ছিলেনপরিবার-পরিকল্পনা’র উপ-পরিচালক মো: এমরান হোসেন চৌধুরী।

এসময় অবহিতকরণ সভায় জাবারাং কল্যাণ সমিতি’র প্রজেক্ট অফিসার দোলন দাশ’র সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা পরিবার পরিকল্পনা’র উপ-পরিচালক মোঃ এমরান হোসেন চৌধুরী বলেন,
সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপ-পরিচালক এমরান হোসেন চৌধুরী বলেন,কৈশোরীদের নিরাপদ জীবন,আনে সামাজিক উন্নয়ন।আজ আমাদের বিনামূল্যে স্বাস্থ্য সেবা পাওয়ার জন্য অনেকগুলো সুযোগ সুবিধা রয়েছে।সুখী পরিবারের কল সেন্টার-১৬৭৬৭।বাল্য বিবাহ রোধ করার জন্য ১০৯ কল করে সেবা নিতে পারবেন।বাল্য বিবাহ রোধ করার জন্য ১০৯নাম্বার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।আমরা এই বিষয়ে না জানলে হবেনা।আমাদের সকলকে এই বিষয়ে জানতে হবে।এই না জানাকে জানানোর জন্যই আমরা এখানে এসেছি।কৈশোরীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন,তোমরা নিশ্চয় পড়েছো নলেজ ইজ পাওয়ার(Knowledge is Power) যার বাংলা অর্থ জ্ঞানই শক্তি।Information is power। Information ও একটি জ্ঞানের শক্তি।এই দুটি বাক্য ছোট হলেও,এটি আমাদের সকলের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।মায়ের গর্ভে ভ্রুণরূপে জন্ম ও মৃত্যুর মাঝখানে মানব জীবন। এটি প্রথমে থাকে বিকাশমান এবং পরে হয় ক্ষীয়মান। ভ্রুণ থেকে শুরু করে ২৩-২৫ বছর বয়স পর্যন্ত ঘটে ক্রমবিকাশ এবং তারপর থেকে ক্রমক্ষয়, যার পরিণতি মৃত্যু।

তিনি বলেন,বিষণ্নতা হল কৈশোর কালের অসুস্থতা ও নানাবিধ অক্ষমতার (disability) তৃতীয় প্রধান কারণ।সহিংসতা, দারিদ্র্য, অপমান এবং অবমূল্যায়ন অনুভূতি বা হীনমন্যতা কিশোর-কিশোরীদের মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যাকে প্রকট করে তুলতে পারে।শিশু এবং কিশোর বয়সে জীবন দক্ষতা (life skills) গড়ে তোলা এবং স্কুল ও অন্যান্য সামাজিক পরিবেশ গুলোতে তাদেরকে মানসিক সাপোর্টে দিয়ে তাদের মানসিক সাস্থ্যের উন্নতি করা যায়।

এদিন দুপুরের দিকে ভাইবোনছড়া ইউনিয়নের মায়াবিনী লেক’র পাড়ে স্থানীয় নারী ও কৈশোরীদের মাঝে প্রজনন স্বাস্থ্য বিষয়ে অবহহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।এ সভায় জেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের উপ-পরিচালক মো: এমরান হোসেন চৌধুরী’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ৩০৯ নং মহিলা আসনের এমপি বাসন্তী চাকমা।এতে আরো স্লোগান ছিল, “পরিবার পরিকল্পনা,মা ও শিশু স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণ করি,বাল্যবিয়ে এবং অনাকাঙ্খিত গর্ভধারণ রোধ করি”।

সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংরক্ষিত আসনের মহিলা এমপি বাসন্তী চাকমা বলেন,জেলা পরিবার পরিকল্পনা উপ-পরিচালকের বহুমুখী প্রতিভা ও কাজের ধরণ অসাধারণ।যার যোগ্যতা আছে তাকে কেউ কখনো আটকে রাখতে পারেনা।তাদের যোগ্যতার প্রতিফলন ঘটে তার কর্মে ও গুণে।

তিনি বলেন,সদর।আজ যে চারা গাছ রোপন করবেন তার যত্ন নিলে এক সময়ে ভালো ফল অবশ্যই দিবে তবে যত্নটা মন দিয়ে করতে হবে ঠিক কিশোরীদের শরীরের যত্ন পরিবারের এবং আমাদের সকলের নিতে হবে।এটা আমাদের সকলের দায়িত্ব ও কর্তব্য। দুর্গম এলাকা থেকে আগত রোগীরা যেন সঠিকভাবে সেবা পায় তা নিচিন্ত করতে হবে এবং সেবা দিয়ে মা ও শিশুর জীবন রক্ষা করতে হবে । স্বাস্থ্য
সেবাদানকারীদের আরো পজিটিভ ভাবনায় এগিয়ে আসার জন্যে অনুরোধ করেন।তিনি সবসময় পরিবার-পরিকল্পনা বিভাগের পাশে আছেন এবং পাশে থেকে সার্বিক সহযোগিতা করবেন বলে আশ্বাস ব্যক্ত করেন।

তিনি সদর উপজেলার পরিবার কল্যাণ সহকারী কর্মকর্তা শাহনাজ সুলতানা’র ব্যক্তিগত উদ্যোগে বিভিন্ন উপজেলা,ইউনিয়নের কৈশোরীদের মাঝে বিনামূল্যে স্যানিটারী প্যাড,সচেতনতামূলক লিফলেট ও ঔষধ বিতরণের এই মহৎ উদ্যোগের ভূঁয়সী প্রশংসা করেন।

এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা সদর উপজেলার পরিবার পরিকল্পনা’র সহকারী উপ-পরিচালক(এ্যানেস্টেসিয়ালোজিস্ট)
ডা.সুভাষ বসু চাকমা,মাটিরাংগা উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা’র কর্মকর্তা নিটোল মনি চাকমা,
জেলা সদর উপজেলার সহকারী পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা শাহনাজ সুলতানা, অর্থ ইউনিটের পরিচালক রোকন উদ্দিন,খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার পরিবার কল্যাণ পারদর্শিকা কৃত্তিকা ত্রিপুরাসহ পরিবার কল্যাণ বিভাগের বিভিন্ন উপজেলার কর্মকর্তা, পরিদর্শক ও পারদর্শিকারা। এছাড়াও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ,অত্র ইউনিয়নের শিশু ও কৈশোরীরা উপস্থিত ছিলেন।