খাগড়াছড়িতে বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট এর উদ্যোগে বিভিন্ন বৌদ্ধ বিহারে অনুদানের চেক বিতরণ

প্রকাশিত: ৯:৩৫ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৯, ২০২২

খোকন বিকাশ ত্রিপুরা জ্যাক,খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ির জেলার বিভিন্ন উপজেলার ৩৩বৌদ্ধ বিহারে শুভ প্রবারনা পূর্ণিমা -২০২১ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ত্রাণ ওকল্যাণ তহবিল থেকে প্রাপ্ত অনুদানের চেক বিতরণ করা হয়েছে।এতে প্রতিপাদ্যের বিষয় ছিল”নমো ত্রিরত্নায়”।
রবিবার(৯জানুয়ারি)বিকালের দিকে বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট’র জেলা কার্যালয়ের অডিটোরিয়ামে এ অনুদানের চেক হস্তান্তর করা হয়।এ সময় জেলার ৯টি উপজেলার ৩৩টি বৌদ্ধ বিহারের প্রতিনিধিদের মাঝে মোট ৭লাখ পঞ্চাশ হাজার টাকা অনুদানের চেক হস্তান্তর করা হয়।বিতরণ অনুষ্ঠানে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি রুপনা চাকমা কনি’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য শুভ মঙ্গল চাকমা।

বিতরণ অনুষ্ঠানে জেলার বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ফিল্ড সুপারভাইজার দারুন বিকাশ ত্রিপুরা’র সঞ্চালনায় আলোচনা সভার সূচনায় ক্রিপিটক পাঠ করেনলতিবান ইউনিয়নের জোতির্ময় কার্বারী পাড়ার আর্য্য মিত্র বৌদ্ধ বিহারের অধ্যক্ষ সুদর্শী স্থবির ভান্তে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা পরিষদের সদস্য মধুমঙ্গল চাকমা বলেন,ধর্মীয় এবংসামাজিক দায়বদ্ধতার জায়গা থেকে গত প্রবারণা পূর্ণিমা -২০২১ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ত্রাণ ওকল্যাণ তহবিল থেকে প্রাপ্ত অনুদানের চেক বিতরণ করা হয়।এটি এদেশের সকল ধর্মীয় মানুষের জন্য অত্যন্ত গৌরবের এবং গর্বের বিষয়।বিভিন্ন ধর্মীয় মানুষের পাশে দাঁড়ানোই বর্তমান সরকারের মূল লক্ষ এবং উদ্দেশ্য। সব সময় দেশের সংকটকালে জনমানুষের কল্যানের জন্য মানান ধরনের ভূমিকা পালন করে থাকে প্রধানমন্ত্রী ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল দাতা সংস্থা।বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের সার্বিক কল্যাণ সাধনে সরকারি এ উদ্যোগের অংশীদার হতে পেরে আমরা আনন্দিত। এর মাধ্যমে বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সঙ্গে যে যাত্রা শুরু হলো তা ভবিষ্যতে আরও বৃহৎ পরিসরে এগিয়ে নিতে পারবো।

বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট এর ট্রাস্টি রুপনা চাকমা কনি বলেন,বাংলাদেশ একটি অসাম্প্রদায়িক দেশ।এদেশের জাতি,ধর্ম,নির্বিশেষে সকলেই শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করবে। বৌদ্ধ ধর্মীয় সম্প্রদায়ের মানুষেরা এদেশের শান্তিপ্রিয় জাতি হিসেবে বিবেচিত।এ ধর্মের মূল নীতি অহিংসা পরম ধর্ম।আমরা সবসময় অহিংসাকে মনে ধারণ করি,পালন করি এবং বিশ্বাস করি।অহিংসা অধর্মের বিপরীত,তাই অহিংসা পরম ধর্ম,হিংসা অধর্ম।
তিনি বলেন,সকল ধর্মের প্রতি জননেত্রী শেখ হাসিনা খুবই আন্তরিক। উনার আন্তরিকতার ও উদারতার ফলে আজ আমরা বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠানে সামান্য কিছু হলেও সেবা দিতে পেরেছি।বর্তমান সরকার এদেশের সকল জাতি,ধর্ম ও সকল সম্প্রদায়ের সরকার।

তিনি জানান,খাগড়াছড়ি জেলাতে ৬শত এর অধিক বিহার রয়েছে।এরমধ্যে জরিপ অনুযায়ী ৬৭২ বৌদ্ধ বিহার রয়েছে।বিহার উন্নয়ন,শ্মশান ঘাট সংস্কার,প্যাগোডা ভিক্তিক পাঠদানের জন্য এই ক্ষুদ্র অনুদানের চেক হস্তান্তর করা হয়।

এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য ও জেলা মহিলা আওয়ামীগের সাধারণ সম্পাদিকা শতরুপা চাকমা,জেলা মহিলা আওয়ামী-লীগ’র সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদিকা মিত্রা চাকমা,পৌরসভার সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সির উক্রাইনু মারমা,সদর উপজেলা মহিলা আওয়ামী-লীগের সভাপতি সুই চিং থুই মারমা,বৈজয়ন্তী বৌদ্ধ বিহারের সভাপতি নির্মল কুমার চাকমা,শিবলি বৌদ্ধ বিহারের সভাপতি সুখতারা দেওয়ান প্রমুখ।