খাগড়াছড়িতে সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসারের হামলায় প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষিকা আহত

প্রকাশিত: ৬:১০ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৬, ২০২২

খোকন বিকাশ ত্রিপুরা জ্যাক,খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়িতে সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার সুভায়ন খীসার হামলায় মহালছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মৌসুমী ত্রিপুরা নামে এক শিক্ষককে গুরুতর আহত করা হয়েছে।মঙ্গলবার(১৬আগস্ট) দুপুর ১২টার দিকে সদর উপজেলা শিক্ষা অফিসারের কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

আহত শিক্ষিকার অভিযোগে বলেন, সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ওই বিদ্যালয়ের ভাঙা গেইট মেরামতের আবেদন নিয়ে সহকারী শিক্ষা অফিসার সুভায়ন খীসার কার্যালয়ে গিয়েছিলাম।দীর্ঘ সময়েও তিনি আমার বিষয়টি নিয়ে কথা না বলায় তার হাত ধরে দৃষ্টি আকর্ষণ করি।বারবার কথা জিজ্ঞেস করার পরও সেই অভিযুক্ত শিক্ষা কোন উত্তর দেন না।পরে ওই প্রধান শিক্ষিকা উনার হাত ধরে আমার সাথে কেন কথা বলেন না,সেটা জিজ্ঞাসা করার পর সে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এই রুম থেকে বেরিয়ে যাও,তা না হলে গলা টিপে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।পরে তিনি ক্ষুদ্ধ হয়ে আমার উপর অতর্কিতভাবে কিল ঘুষি মারতে থাকেন তিনি। আমার চোখে মারাত্মকভাবে আঘাত পান এবং বগলের বাম পাশ ফেটে রক্ত পরে যায়। পরে অফিসের অন্যরা আহত অবস্থায় আমাকে হাসপাতালে নিয়ে আসে।  

সহকারী শিক্ষা অফিসার সুভায়ন খীসা বলেন, তিনি (শিক্ষিকা) অফিসে এসে আমার হাত-গলা ধরে দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করেন। এসময় তাকে আমি অপেশাদার আচরণ করতে নিষেধ করি। এই নিয়ে কথাকাটাকাটি এক পর্যায়ে ধাক্কাধাক্কিতে তিনি দরজায় আঘাত পান।

তিনি আরও বলেন,আমি তাকে মারিনি কিংবা ঘুষি দেয়নি। উনার বেপরোয়া কথাবার্তার ধাক্কা দিয়েছি। পরে সে দরজায় আঘাট পেয়ে আহত হয়েছে।

এ ব্যাপারে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ফাতেমা মেহের ইয়াসমিন বলেন,আমি একটা জরুরী কাজে খবং পড়িয়া স্কুলে গিয়েছিলাম। তখন আমি টেলিফোনে জানতে পারি যে এই ঘটনা। আমি হাসপাতালে আসলাম। তারা যদি লিখিত অভিযোগ করে। তাহলে সেই লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।