খামার পাড়ায় দোল পূর্ণিমা উপলক্ষে দুঃস্থদের মাঝে বস্ত্র বিতরণ

প্রকাশিত: ১২:০৭ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১৯, ২০২২


খোকন বিকাশ ত্রিপুরা জ্যাক,খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:

“শ্রীকৃষ্ণস্ত্ত ভগবান স্বয়ম” প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার পেরাছড়া ইনিয়নের খামার পাড়া শ্রী শ্রী সার্বজনীন লক্ষী নারায়ন মন্দিরে দোল পূর্ণিমা তিথি উপলক্ষে মহা-অষ্টপ্রহর ব্যাপী হরিনাম কীর্তন ও মহোৎসব উপলক্ষে ১৫০জনের অধিক দুঃস্থদের মাঝে বস্ত্র বিতরণ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার(১৮ই মার্চ) বিকালের দিকে খামার পাড়া লক্ষী নারায়ন মন্দির’র প্রাঙ্গনে এ আলোচনা সভা ও বিতরণ অনুষ্ঠান করা হয়।এ সময় খোকন বিকাশ ত্রিপুরা’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংক অবসর প্রাপ্ত ডিজিএম দীনৃয় রোয়াজা ও অনুষ্ঠান শুভ উদ্বেধন করেন পেরাছড়া ইউপি চেয়ারম্যান তপন বিকাশ ত্রিপুরা এব প্রান বক্তা হিসেবে উপস্থিত লেখক ও গবেষক প্রভাংশু ত্রিপুরা।

এ সময় অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন,সনাতন ধর্মের বারো মাসে তের পার্বণ। তবে অনেক উৎসবগুলির মধ্যে সকলের পছন্দের তালিকায় প্রথমের দিকেই থাকে দোল বা রং উৎসব।
বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশে বেশির ভাগ স্থানেই রঙের উৎসব পালন করা হয় মহা সমারোহে।সাধারণত ফাল্গুন মাসেই হয় দোল উৎসব।

তারা আরও বলেন,রঙের উৎসবে কম বেশি সামিল হন সকলেই। আর এই বিশেষ দিন উপলক্ষে বিভিন্ন জায়গায় পুজোও হয়। দোল পূর্ণিমা হিন্দু/সনাতন ধর্মের জন্যে খুব শুভ বলে মনে করা হয়। এদিন রাধা-কৃষ্ণের পুজো করা হয় বিশেষত। বৈষ্ণব বিশ্বাস অনুযায়ী, দোল পূর্ণিমার দিন বৃন্দাবনে শ্রীকৃষ্ণ আবির নিয়ে রাধিকা ও অন্যান্য গোপীনীদের সঙ্গে রং খেলায় মেতেছিলেন। আবার শান্তিনিকেতনে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বসন্ত উৎসব চালু করেছিলেন। তাই রঙিন এই উৎসবের দিকে মুখিয়ে থাকেন অনেকেই।

আলোচনা সভা শেষে এলাকার ১৫০জন দুঃস্থদের মাঝে থামি,লুঙ্গি এবং কম্বল বিতরণ করা হয়।

এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে ২৬৫নং বাঙ্গালকাটি মৌজার হেডম্যান নিবু লাল রোয়াজা,গণমাধ্যম ব্যাক্তিত্ব ও ত্রিপুরা সনাতনী গীতা সংঘের সহ-সভাপতি ত্রিপন জয় ত্রিপুরা প্রমুখ।