টিআইবি সরকারি বিভিন্ন এজেন্ডা বাস্তবায়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে;কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা

প্রকাশিত: ১১:৫৭ অপরাহ্ণ, জুন ১২, ২০২২

খোকন বিকাশ ত্রিপুরা জ্যাক,খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ(টিআইবি) ও সচেতন নাগরিক কমিটি(সনাক) খাগড়াছড়ি’র আয়োজনে “পার্টিসিপেটরি অ্যাকশন এগেইনেস্ট করাপশন: টুওয়ার্ডস ট্রান্সপারেন্সি অ্যান্ড অ্যাকাউন্টেবিলিটি (প্যাকটা)” বিষয়ে নব-প্রকল্পের অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত।রবিবার দুপুরে সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) এর আয়োজনে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের সম্মেলন কক্ষে এ অবহিতকরন(অরিয়েন্টেশন) সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভারত প্রত্যাগত শরনার্থী বিষয়ক টাস্কফোর্স’র চেয়ারম্যান (প্রতিমন্ত্রী পদমর্যাদা) কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা,এমপি এবং সভাপতিত্ব করেন সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) খাগড়াছড়ি’র সভাপতি প্রফেসর বোধিসত্ত্ব দেওয়ান।

অবহিতকরণ সভায় খাগড়াছড়ি সনাকের
সহ-সভাপতি লালসা চাকমার সঞ্চালনায় স্বাগত রাখেম সনাক’র সদস্য মথুরা বিকাশ ত্রিপুরা।

এ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা বলেন, দুর্নীতি একটি মারাত্মক সামাজিক ব্যাধি।এই ব্যাধি থেকে মুক্তি পেতে হলে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলা জরুরী।এখন সনাক -টিআইবি সরকারি বিভিন্ন এজেন্ডার বাস্তবায়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। দেশের উন্নয়নের জন্য সকলকে একসাথে ও ঐক্যতার সাথে সুর মিলিয়ে কাজ করতে হবে। এ ক্ষেত্রে সকলের মানসিকতার পরিবর্তন করতে হবে। টিআইবি ও সনাক কর্তৃক যে নতুন প্রকল্প শুরু করতে যাচ্ছে এতে দুর্নীতিবিরোধী মানসিকতার ভালোর দিকটাই প্রতিফলন ঘটবে বলে ব্যক্ত করেন।সামাজিক চেতনা সৃষ্টির জন্য কার্যকর কর্মসূচি প্রণয়ন ও তা বাস্তবায়ন এবং দুর্নীতির বিরুদ্ধে গণসচেতনতা সৃষ্টি এবং রুখে দাঁড়ানাের আহ্বান জানান তিনি।

জানা যায়, টিআইবি দেশের সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে স্থানীয় পর্যায়ে সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) এর মাধ্যমে দুর্নীতিবিরোধী বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) এর সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে অধিকতর অন্তর্ভুক্তিমূলক, ন্যায়সঙ্গত ও বৈষম্যহীন সমাজ গড়ে তোলা এবং দুর্নীতি প্রতিরোধে অবদান রাখতে পার্টিসিপেটরি অ্যাকশন এগেইনেস্ট করাপশন: টুওয়ার্ডস ট্রান্সপারেন্সি অ্যান্ড অ্যাকাউন্টেবিলিটি (প্যাকটা) প্রকল্প গ্রহণ করেছে।

টিআইবি’র চট্টগ্রাম ক্লাস্টারের কো-অর্ডিনেটর মোঃ জসীম উদ্দিন জানান,পাঁচ বছর মেয়াদী প্যাকটা প্রকল্পটি (জানুয়ারি ২০২২ থেকে ডিসেম্বর ২০২৬) ইতোমধ্যে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার-এর এনজিও বিষয়ক ব্যুরোর অনুমোদন গ্রহণ করেছে। যার প্রকল্পের আনুমানিক ব্যয় ধরা হয়েছে ২’শত ২৪ কোটি ৫৬ লাখ ৪০ হাজার টাকা। খাগড়াছড়ি টিআইবি’র জন্য ৫বছরের প্রস্তাবিত বাজেট ৩৫লাখ ৫৫হাজার টাকা। তবে ভবিষ্যতে এ বাজেট বৃদ্ধি হওয়া সম্ভাবনার কথা জানান তিনি।

এ প্রকল্পের বাজেটে উন্নয়ন সহযোগী হিসেবো অর্থায়ন করেছে, কমনওলেথ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অফিস (এসিডিএ) সুইস এজেন্সি ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড কো-অপারেশন (এসডিসি) এবং দ্যা সুইডিস ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট কো-অপারেশন এজেন্সি (এসআইডিএ)।প্রকল্পে সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক), খাগড়াছড়ির শিক্ষা(প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা), স্বাস্থ্য, ভূমি,পরিবেশ ও নির্মাণ এবং প্রয়োজনে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি খাতে সেবার মান, সুশাসনের অবস্থা পর্যবেক্ষণ ও উন্নয়নের লক্ষ্যে নানা কর্মসূচি বাস্তবায়ন করবে।

এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মংসুইপ্রু চৌধুরী, জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ সাবের, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) জিনিয়া চাকমা,বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোঃ হুমায়ন কবির, জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ মনিরুল ইসলাম,জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা উত্তম খীসা, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ফাতেমা মেহের ইয়াসমিন।এছাড়াও জেলার বিভিন্ন এনজিও সংস্থার প্রতিনিধি,সাংবাদিক(প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া),টিআইবি, সনাক ও ইয়েস সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।