ঢাকা, ২৪শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ২৪শে জিলকদ, ১৪৪৩ হিজরি

তালা উপজেলায় অনায়াসেই চলছে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন


প্রকাশিত: ৭:২৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৮, ২০২২

বি এম বাবলুর রহমান ( তালা-সাতক্ষীরা)
তালায় কৃষি জমি ধ্বংস করে ভূ-গর্ভ থেকে বেআইনি ভাবে আইনের ভাবে আইনের চোখ ফাঁকি দিয়ে দেদারসে উত্তোলন করা হচ্ছে বালু।

শনিবার (৮ই জানুয়ারি) সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে তালা উপজেলার পৃথক পৃথক এলাকায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের দৃশ্য। তালা উপজেলা তেঁতুলিয়া ইউনিয়নের লক্ষণপুর গ্রামের রাস্তার কাজে বালুর প্রয়োজন থাকায় কৃষি জমি ধ্বংস করে লক্ষনপুর খৃষ্টান মিশনের পাশে বালু উত্তোলন করতে দেখা গেছে। অপরদিকে একি ইউনিয়নের লাউতাড়া গ্রামের সোনা পাতিল বিল থেকে অবৈধভাবে শ্মশানে মাটি ভরাট করতে চলছে অবৈধ বালু উত্তোলন।

কি হচ্ছে তালা উপজেলার জনপদে সকল অনিয়ম কে নিয়মেই পরিণত হচ্ছে উপজেলা জুড়ে। আইনের সু- শাসনের বড় অভাব অনুভব হচ্ছে এই উপজেলায়। সমাজ ব্যাবস্থা কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে। আগামী প্রজন্ম কি পারবে সভ্য জগতে বেড়ে উঠতে এত প্রতিবন্ধকতা পার করতে। কৃষি নির্ভর দেশে এ ভাবে যদি প্রতিনিধি কৃষি জমি বিপন্ন করে ধংস করা হয় তাহলে আগামীতে দেশের খাদ্য চাহিদার পূরুনে মারাত্বক হুমকির মুখে পড়বে।

প্রসঙ্গ ক্রমে লক্ষণপুর গ্রামে বালু উত্তোলনের ভিডিও ধারণের সময় কর্তব্যরত শ্রমীকরা বলতে থাকেন ছবি তুলছেন কেন। হুমকি স্বরুপ সরকারি কর্মকর্তার নাম বলে জানান এটি তার কাজ। তিন চার দিন ধরে উঠানো হচ্ছে বালু মেশিন ম্যান হাসান পালালেও অপরেটর মোঃ সাইফুল ইসলাম ও মোঃ রিপন সংবাদকর্মী দের উপস্থিত টের পেয়ে তাড়াহুড়ো করে মেশিন বন্ধ করে চলে যান।
এছাড়া লাউতাড় গ্রামের সোনা পাতিল বিলে মোঃ অজিয়ার রহমানের মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন হচ্ছে ১৪ দিন ধরে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে সকলের অগোচরে। আইনের চোখ ফাঁকি দিয়ে দেদারসে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে তালা উপজেলার তেঁতুলিয়া ইউনিয়নে।
বালু উত্তোলনের কোন ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের কাউকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। মোবাইল ফোন মারফত যোগাযোগ চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে ৫ নং তেঁতুলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল কালাম আজাদ জানান অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের খবর সে জানে না। তবে সংবাদকর্মীদের মাধ্যমে জানতে পেরেছেন। এক্ষুনি জরুরী ভিত্তিতে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের বিষয়টি দেখছেন বলে জানান।

এ বিষয়ে তালা উপজেলা নির্বাহি অফিসার বাবু প্রশান্ত কুমার বিশ্বাস জানান, এটি সম্পূর্ণ বেআইনি দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।