পানছড়িতে উৎসব এর অর্থায়নে ‘পানি ধরো, জীবন বাঁচো প্রকল্প-২ এর শুভ উদ্বোধন:

প্রকাশিত: ১০:১৩ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১, ২০২১

খোকন বিকাশ ত্রিপুরা জ্যাক,খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ির পানছড়িতে আমেরিকার সংস্থা “উৎসব” এর অর্থায়নে সামাজিক সংগঠন “পথের ঠিকানা” কর্তৃক বাস্তবায়নে “শিক্ষা উন্নয়ন সংস্থা ও ত্রিপুরা সনাতনী গীতা সংঘ” এর তত্ত্বাবধানে পানি ধরো, জীবন বাঁচো প্রকল্প-২ এর শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে।

শুক্রবার (১অক্টোবর ২০২১) লোগাং ইউনিয়নের অলিন্দ্র কার্বারী পাড়ায় প্রকল্পের শুভ উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ ব্যাংক,চট্টগ্রাম’র উপ-মহাব্যবস্থাপক দীনময় রোয়াজা।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্থানীয় কার্বারী বীর বাহু ত্রিপুরার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পথের ঠিকানা সংগঠনের সভাপতি ডাঃ যীশুময় দেব, খাগড়াছড়ি আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালের জুনিয়র কনসালটেন্ট ডাঃ নয়ন ময় ত্রিপুরা, ‘সনাতনী জাগরণ সংঘ চট্টগ্রাম’র সভাপতি কাঞ্চন আচার্য্য।

এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ ত্রিপুরা কল্যাণ সংসদের পানছড়ি আঞ্চলিক শাখার সাবেক সভাপতি বরেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, শিক্ষা উন্নয়ন সংস্থার সমন্বয়ক নবলেশ্বর দেওয়ান লায়ন, দৈনিক প্রতিদিনের চিত্র পত্রিকার চট্টগ্রাম অঞ্চলের ব্যুরো প্রধান ত্রিপন জয় ত্রিপুরা, ত্রিপুরা সনাতনী গীতা সংঘের সাধারণ সম্পাদক অর্পন বিকাশ ত্রিপুরা প্রমুখ।আরও উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, বিভিন্ন স্কুল-কলেজের অধ্যয়নরত শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডাঃ যীশু ময় দেব বলেন, আমাদের সংগঠন ও ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে শিক্ষা ও স্বাস্থ্যের জন্য যা যা করা দরকার করবো। শিক্ষা ও স্বাস্থ্য উন্নয়নের মাধ্যমে এগিয়ে যাবো আমরা একসাথে। তবে ছেলেমেয়েদের শিক্ষিত করে তোলার জন্য অভিভাবকদের প্রতি আহ্বান জানান।

এদিন অনুষ্ঠানে প্রকল্পের উদ্বোধক দীনময় রোয়াজা বলেন, পড়ালেখার পাশাপাশি সমাজ উন্নয়নমূলক বিভিন্ন কার্যক্রম করতে হবে। শিক্ষার জন্য পানছড়ি উপজেলার পড়ুয়া ত্রিপুরা শিক্ষার্থীদের মধ্যে অনাথ, গরীব ও মেধাবী যাদের পড়ার আসবাবপত্র নাই, তাদেরকে সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন।

এছাড়াও তিনি আরো বলেন, পাড়াবাসীর উন্নয়নের জন্য সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। এসময় তিনি মন্দিরের উন্নয়নে কিছু নগদ অর্থ সহযোগিতা প্রদান করেন।

এরপর প্রকল্প-২উদ্বোধন অনুষ্ঠানে অতিথির বক্তব্যে ডাঃ নয়ন ময় ত্রিপুরা বলেন, সবার আগে আমাদেরকে শিক্ষা অর্জন করতে হবে। শিক্ষার কোন বিকল্প নেই। সু-শিক্ষায় শিক্ষিত হলে ধর্ম স্থানান্তর হওয়া কোন প্রশ্নই আছে না। সেজন্য আমাদের সু-শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে, দেশ, সমাজ ও জাতির উন্নয়নে কাজ করতে হবে।

এসময় বিশেষ অতিথি নবলেশ্বর দেওয়ান লায়ন বলেন, আমরা সবসময়য় অবহেলিত শিক্ষার্থীদের সর্বোচ্চ সহায়তা করে থাকি, সেটা আজো অব্যাহত আছে। বেশি করে, পাহাড়ের প্রত্যম্ত অঞ্চলে শিক্ষা উন্নয়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। শিক্ষার্থীদের সর্বদা পড়াশোনার প্রতি মনোযোগী হতে হবে, যেকোনো পরিস্থিতিতে তা চালিয়ে যেতে হবে। সেইসাথে নৈতিকতাও ঠিক রাখতে হবে। এজন্য সংগঠনের পক্ষ থেকে যা যা করা প্রয়োজন,সেটা করার আশ্বাস দেন তিনি।

আলোচনা সভা শেষে মন্দিরের জন্য পথের ঠিকানা সংগঠনের পক্ষ থেকে একটি সোলার প্যানেল মন্দির পরিচালনা কমিটির নিকট প্রদান করা হয়।