পানছড়িতে জোর করে উচ্ছেদ,লুটপাট ও মারধরের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত: ১০:১৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৯, ২০২১

খোকন বিকাশ ত্রিপুরা জ্যাক,খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ির পানছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সেক্রেটারী বিজয় কুমার দে সহ একটি সংঘবদ্ধ চক্রের বিরুদ্ধে রেকর্ডীয় ভুমি ও বসতবাড়ী থেকে জোর করে উচ্ছেদ, মারধর ও ঘরের মালামাল লুটপাটের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন আব্দুল করিম নামে এক অসহায় পরিবার।
সোমবার(২৯নভেম্বর) সোমবার খাগড়াছড়ি প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করা হয়।সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নির্যাতিত আবদুল করিম। এ সময় তার স্ত্রী নুরের নেছা ও বৃদ্ধ মা বিবি ফাতেমা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আবদুল করিম বলেন পানছড়ি উপজেলার আওয়ামী লীগের সেক্রেটারী বিজয় কুমার দে সহ একটি সংঘবদ্ধ চক্রের বিরুদ্ধে রেকর্ডীয় ভুমি ও বসতবাড়ী থেকে জোর করে উচ্ছেদ,হামলা চালিয়ে মারধর ও ঘরের মালামাল লুট ও প্রাণ নাশের হুমকীর অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করেছে আব্দুর করিম নামে এক অসহায় পরিবার । আজ সোমবার খাগড়াছড়ি প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, তার সৎ ভাইদের সহায়তায় উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা বিজয় কুমার দে সহ ১৫/২০ জনের একটি চক্র পানছড়ি বাজারের মুল্যবান ৩৮ শতক জমি গ্রাস করার জন্য দীর্ঘদিন ধরে চক্রান্ত করে আসছিল। আইনীভাবে না পেরে গত ২২ অক্টোবর দুলাল মিয়ার নেতৃত্বে পানছড়ি বাজারে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত ও মারাত্মকভাবে জখম করে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় বাড়ীর ৯ জন ভাড়াটিয়াকে জোর পুর্বক বের করে দেয় এবং তার বসতঘরে রক্ষিত নগদ টাকা ও মালামাল লুট করে ঘরগুলো দখলে নিয়ে যায়। তাদের হুমকির মুখে বর্তমানে খাগড়াছড়িতে এক আত্মীয়ের বাড়ীতে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতরভাবে অবস্থান করছেন বলে উল্লেখ করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, ভুমি বিরোধ নিয়ে উচ্চ আদালতের রায় তার অনুকুলে থাকলেও থানা পুলিশসহ কোথাও কোন প্রতিকার পাচ্ছেন না তিনি। এ ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসনসহ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।