সুস্থ্য সমাজ গড়তে হলে, সুন্দর মনের মানুষ হতে হবে..কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি

প্রকাশিত: ৯:২৫ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৬, ২০২১

খোকন বিকাশ ত্রিপুরা জ্যাক,খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ি জেলা সদরের গাছবান পারমীপুর অরণ্য কুটিরে ৪র্থ তম শুভ দানোত্তম কঠিন চীবর দান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার(০৬নভেম্বর) সকাল থেকে বৌদ্ধধর্মাবলম্বীদের সর্বশ্রেষ্ঠ দানোৎসবে উৎসবমুখর পরিবেশে পারমীপুর অরণ্য কুটিরে(বিহার)এ কঠিন চীবর দান অনুষ্ঠিত হয়েছে।এদিন সকাল থেকে প্রাতরাশ, বুদ্ধপুজা, বুদ্ধ মূর্তি দান, সংঘ দান, অষ্টপরিষ্কার দান, পঞ্চশীল প্রার্থনা, সুত্রপাঠ, ধর্মীয় দেশনা, কল্পতরু প্রদক্ষিণ করে দানোৎসবটি উদযাপিত হয়।দুপুরে অনুষ্ঠানের দ্বিতীপর্ব শুরুর আগে উৎসবমুখর পরিবেশে কঠিন চীবর দান এবং কল্পতরু প্রদক্ষিণ করে আনন্দ শোভাযাত্রা করা হয়। শত শত পুণ্যার্থীদের সুশৃঙ্খল পদচারণায় মূখর হয়ে উঠে বিহার প্রাঙ্গণ।দ্বিতীয় পর্বের শুরুতেই অনুষ্ঠানে আগত প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিদেরকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন,অত্র কুটিরের দায়ক-দায়িকারা।পরে এ অনুষ্ঠানের বিশেষ অবদান রাখায় উপবিষ্ট অতিথিদের মাঝে সম্মাননা স্বারক ক্রেস্টপ্রদান করা হয়।অনুষ্ঠানে প্রতিপাদ্যের মূল বিষয় ছিল “অহিংসা পরম ধর্ম”।

এসময় দানোত্তম কঠিন চীবর দান উদযাপন কমিটির আহবায়ক ধীমান খীসা’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভারত প্রত্যাগত উপজাতীয় শরনার্থী বিষয়ক টাস্কফোর্সের চেয়ারম্যান (প্রতীমন্ত্রী পদমর্যাদায়) ও এমপি কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা।

অনুষ্ঠানে ডালিয়া চাকমা’র সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা বলেন,আমাদেরকে শুধু শিক্ষিত এবং প্রতিষ্ঠিত হলে হবেনা।আমাদের সকলকে প্রকৃত মানবিক ও দানবিক গুণাবলীর অধিকারী হতে হবে।মানবিক ও দানবিকরাই এই পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মানুষ এবং শ্রেষ্ঠ ধার্মিক।সুন্দর সমাজ গড়ার জন্য সুন্দর মনের মানুষ হওয়াটাই জরুরী।সেটা সমাজ কিংবা দেশের জন্য কল্যাণকর ভুূমিকা পালন করবে।

তিনি আরো বলেন,বাংলাদেশ একটি শান্তির সম্প্রীতির দেশ। মুসলিম,হিন্দু,বৌদ্ধ খ্রিস্টানসহ আমরা সকলেই এদেশের শান্তিপ্রিয় নাগরিক।সকলেই এদেশের শান্তি সম্প্রীতির রক্ষার জন্য এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।ঐক্যবদ্ধ হয়ে এদেশকে আরো সামনের দিকে এগিয়ে নেয়ার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

এরপর বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট’র ট্রাস্টি রুপনা চাকমা কণি বলেন,সমাজ পরিবর্তনের জন্য আমাদের আগে প্রকৃত মানুষ হতে হবে।প্রকৃত মানুষ হতে হলে আমাদেরকে একে অপরের প্রতি হিংসা বিদ্বেষ একেবারেই মন থেকে নির্মুল করা উচিত।হিংসা মানুষ তথা সমাজ,জাতি এবং দেশকে অসুন্দর করে।উন্নয়নকে বাঁধাগ্রস্ত করে এবং কল্যাণকর কাজগুলিকে ধ্বংস করে দেয়।
বাংলাদেশ একটি অসাম্প্রদায়িক দেশ,এই বাংলাদেশ সকল ধর্মের,সকল সম্প্রদায়ের মানুষ স্বাধীনভাবে বসবাস করবে।দেশের শান্তি শৃঙ্খলা নষ্ট করার জন্য কিছু কিছু দুষ্কৃতকারীরা ফায়দা লুটার চেষ্টায় মাতবে, দেশের উন্নয়নকে বাঁধাগ্রস্ত করতে মরিয়া তারা। সবাইকে শান্তি বিনষ্টকারী ও দুষ্কৃতকারীদের বিরুদ্ধে সবসময় সজাগ আহৃবান জানান তিনি।
এসময় তিনি বর্তমান সরকারের নানান ধরণের উন্নয়নের কথা বিস্তারিত তুলে ধরেন।

এতে প্রধান ধর্ম নির্দেশক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, তেতুল তলা অগ্র মৈত্রী ভাবনা কেন্দ্রের অধ্যক্ষ ভদন্ত তেজবংশ মহাস্থবির ও পারমীপুর অরণ্য কুটির’র প্রধান ভদন্ত ভদন্ত শীলা রক্ষিত,নির্বাণগিরি অরণ্য কুটিরের ভদন্ত চন্দ্র কীর্তি চাকমা ও পারলীয়া বনভাবনা কুটিরের ভদন্ত সুগত বংশ মহাস্থবিরসহ অন্যান্যরা

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ধর্ম-মন্ত্রনালয় বিভাগের বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট’র ট্রাস্টি রুপনা চাকমা কণি,উপজাতীয় শরণার্থী বিষয়ক ট্রাস্কফোর্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও ৪র্থ তম কঠিন চীবর দান’র বিশিষ্ট দাতা কৃষ্ণ চন্দ্র চাকমা,মহালছড়ি সরকারি কলেজের সহকারী অধ্যাপক ও ৪র্থ তম কঠিন চীবর দান’রবিশিষ্ট দাতা ইতি চাকমা,খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য শুভ মঙ্গল চাকমা,জেলা সমবায় বিভাগের আহ্বায়ক ও জেলা পরিষদের সদস্য নিলোৎপল খীসা ও সফরসঙ্গী অন্তরা খীসা এবং অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় সার্বিক সহায়তায় ছিলেন জধাবল বৌদ্ধ ছাত্র-ছাত্রীর সভাপতি জুয়েল চাকমা।