শিক্ষার্থীদের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষে সমগ্র ছাত্রসমাজকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে;অমল ত্রিপুরা

প্রকাশিত: ১১:১২ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২২


খোকন বিকাশ ত্রিপুরা জ্যাক,খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ির লক্ষ্মীছড়িতে আয়োজিত এক ছাত্র সমাবেশে বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অমল ত্রিপুরা বলেন, ‘পার্বত্য চট্টগ্রামের মানসম্মত শিক্ষা নেই, অবকাঠামো উন্নয়ন ঘটেনি,ছাত্রাবাস চালু নেই, পর্যাপ্ত শিক্ষকের অভাব রয়েছে। তাই এ সকল দাবি আদায়সহ শিক্ষার্থীদের ন্যায্য অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে সমগ্র ছাত্রসমাজকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে’।

রবিবার(২০ ফেব্রুয়ারি ২০২২) সকাল ১১ টায় খাগড়াছড়ির লক্ষ্মীছড়ি উপজেলার বর্মাছড়ি ইউনিয়নের কুদুকছড়ি বাজার মাঠে পিসিপির লক্ষ্মীছড়ি উপজেলা শাখার উদ্যোগে আয়োজিত ছাত্র সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

সমাবেশে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সংগঠক সরল চাকমা বলেন, ব্যক্তির ব্যক্তিত্বের পরিপুর্ণ বিকাশের জন্য প্রয়োজন হয় তার নিজস্ব ভাষা, সংস্কৃতি, ইতিহাস, ঐতিহ্যসহ রাজনৈতিক অধিকার। কিন্তু উচ্চ পদস্থ মহলেরা এদেশের নাগরিকদের ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত করে করে রেখেছে। সংবিধানে দেশের সংখ্যালঘু জাতিসত্তাসমূহকে উগ্রজাতীয়তাবাদ চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। এখানে নেই কোন গণতান্ত্রিত শাসন ব্যবস্থা। রাষ্ট্রের এই সকল অন্যায় নিপীড়নের বিরুদ্ধে সমগ্র ছাত্রসমাজকে রুখে দাঁড়াতে হবে।

পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের নেতা অমল ত্রিপুরা আরো বলেন,শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে দেশে সকল কিছু প্রতিষ্ঠান খোলা রেখেছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার কারণে পার্বত্য চট্টগ্রামসহ সারাদেশে শিক্ষা ব্যবস্থার চরম অবনতি দেখা দিয়েছে ও বিপর্যয় ঘটেছে। গত ৪ ফেব্রুয়ারি পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক এক জরিপে দেখা গেছে করোনাকালীন তিন পার্বত্য জেলায় ২৫টি উপজেলায় ১,৬৫৩টি বাল্যবিবাহ হয়েছে এবং দারিদ্র্যতার ফলে ৫,০৩৭জন শিক্ষার্থী ঝড়ে পড়েছে। এটির মাধ্যমে স্পষ্ট হয় যে পাহাড়ে শিক্ষা ব্যবস্থা কোন পর্যায়ে গিয়ে দাঁড়িয়েছে।

এছাড়াও তিনি পার্বত্য চট্টগ্রামে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহে গোয়েন্দা নজরদারী প্রভাবমুক্ত করে গণতান্ত্রিক পরিবেশ নিশ্চিত করা, মানসম্মত শিক্ষার ব্যবস্থা চালু, অবকাঠামো উন্নয়ন, আবাসন সংকট নিরসন, ছাত্রবাস চালুসহ সকল জাতিসত্তার মাতৃভাষায় প্রাথমিক শিক্ষা চালুসহ পিসিপির শিক্ষাসংক্রান্ত ৫ দফা দাবি বাস্তবায়নের জন্য সরকারে প্রতি আহ্বান জানান।

সমাবেশ থেকে তিনি শিক্ষার্থীদের ন্যায্য অধিকার আদায়ের লক্ষে ছাত্র সমাজকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

জাতিসত্তা মুক্তি সংগ্রাম পরিষদের সদস্য বিনোদ মুন্ডা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামসহ সারা দেশে সংখ্যালঘু জাতিসত্তাদের কোন নিরাপত্তা নেই, তাঁদের ভাষা, সংস্কৃতি, ঐতিহ্যকে ধ্বংস করার জন্য একের পর এক চক্রান্ত চালিয়ে যাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, শুধু ৫ জাতির ভাষায় মাতৃভাষার শিক্ষার সুযোগ দিলে হবে না। এদেশের ৪৫টির অধিক জাতিসত্তাদের মাতৃভাষার মাধ্যমে শিক্ষার অধিকার নিশ্চিত করতে হবে। তিনি পিসিপির শিক্ষাসংক্রান্ত ৫ দফা দাবিনামা দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য সরকারে প্রতি জোর আহ্বান জানান।

সমাবেশে সুদেব বলেন, ভাষা হচ্ছে একটি জাতির প্রাণ, তাই জাতি হিসেবে বেছে থাকতে ভাষার অধিকার অবশ্যই দরকার কিন্তু এই বাংলাদেশ আমাদের ভাষার অধিকার থেকে বঞ্চিত করে রেখেছে, তাই অতি শীঘ্রই সকল মাতৃভাষার মাধ্যমে শিক্ষালাভের অধিকার নিশ্চিত করতে হবে।

হিল ইউমেন্স ফেডারেশনর সদস্য সুপ্রভা চাকমা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের নারী নির্যাতন, ধর্ষণ, খুন, গুম অপহরণের ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটে চলছে। তিনি এদেশের সকল নিপীড়নের বিরুদ্ধে ও নারী অধিকার বিষয়ে সচেতন হয়ে লড়াই সংগ্রামে সামিল হওয়ার আহ্বান জানান।

ছাত্র সমাবেশ শেষে র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি কুদুকছড়ি বাজার মাঠ থেকে শুরু হয়ে কুদুকছড়ি বাজার প্রদক্ষিণ করে দশবল বৌদ্ধবিহার গেইটে গিয়ে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে সমাপ্ত করা হয়।

শপথ বাক্য পাঠের নামে উগ্রজাতীয়তাবাদী ভাবধারা প্রতিষ্ঠা চলবে না, ছাত্রসমাজ রুখে দাঁড়াও, কেবল ৫ ভাষা নয় সকল জাতিসত্তার মাতৃভাষায় প্রাথমিক শিক্ষা লাভের অধিকারসহ শিক্ষা সংক্রান্ত ৫ দফা বাস্তবায়ন কর” এই স্লোগানে অনুষ্ঠিত ছাত্র সমাবেশে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের লক্ষ্মীছড়ি উপজেলা শাখার সভাপতি রুপান্তর চাকমার সভাপতিত্বে ও সহ-সভাপতি রিটন চাকমা সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন পিসিপি’র-এর লক্ষ্মীছড়ি উপজেলা সংগঠক সরল চাকমা, পিসিপি’র কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অমল ত্রিপুরা ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সহ-সাধারন সম্পাদক সুদেব চাকমা, জাতিসত্তা মুক্তি সংগ্রাম পরিষদের সদস্য বিনোদ মুন্ডা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের লক্ষ্মীছড়ি উপজেলা শাখার সভাপতি পাইচি মারমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশন লক্ষ্মীছড়ি উপজেলা শাখার সদস্য সুপ্রভা চাকমা প্রমুখ।