সংবাদ প্রকাশের জেরে রৌমারীতে সাংবাদিকের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা

প্রকাশিত: ১২:৩৬ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২৯, ২০২১

রাজীবপুর(কুড়িগ্রাম)প্রতিনিধি

সংবাদ প্রকাশের জেরে কুড়িগ্রামে দৈনিক কালের কণ্ঠ পত্রিকার আঞ্চলিক প্রতিনিধি কুদ্দুস বিশ্বাসের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলার ঘটনা ঘটেছে।

১৫/১৬ জনের একটি ক্যাডার বাহিনী রৌমারী উপজেলা রোডে ওই সাংবাদিকের অফিস কাম ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং দোকানের জিনিসপত্র তছনছ করে। এসময় জীবন বাঁচাতে কৌশলে সাংবাদিক কুদ্দুস বিশ্বাস পালিয়ে যায়। হামলাকারী বলে মন্ত্রীর বিরুদ্ধে নিউজ করার সাহস হলো তোর কি করে। এর কিছুক্ষণ পর ওই বাহিনীর সদস্যরা অফিসের কাগজপত্র এবং কুরিয়ার সার্ভিস এর জিনিসপত্র দোকানের বাইরে বের করে অফিসে তালা লাগিয়ে দেয়।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর ভাই মারুফ আহমেদ সিক্ত মন্ডল উপস্থিত থেকে বুধবার (২৮ এপ্রিল)দুপুর দিকে ওই ঘটনা ঘটান বলে প্রত্যদর্শী ও স্থানীয়রা জানান।

খবর পেয়ে রৌমারী থানা পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। কিন্তু ততক্ষণে অভিযুক্তদের অনেকেই চলে যায়। তবে মন্ত্রীর ভাই মারুফ আহমেদ সিক্ত মন্ডল উল্টো পুলিশকে ভুল বোঝানোর চেষ্টা করেন। এ সময় মন্ত্রীর ভাই পুলিশের সামনেই সাংবাদিকের নাম ধরে গালিগালাজ করেন।

গত সোমবার দৈনিক কালের কণ্ঠ পত্রিকার শেষের পাতায় ‘রৌমারী-রাজিবপুরে অপ্রয়োজনীয় প্রকল্প, সোয়া কোটি টাকা বরাদ্দ, কর্মকর্তাদের আপত্তি, প্রশাসনকে চাপ প্রতিমন্ত্রীর’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ হয়।এর জের ধরে ওই সাংবাদিকদের নানাভাবে হুমকি দিয়ে আসছিল প্রতিমন্ত্রীর ক্যাডার বাহিনী।

কুদ্দুস বিশ্বাস জানান, হামলার ভয়ে গত কয়েকদিন তিনি অফিস করেননি। আজকে ঘটনাস্থল থেকে কৌশলে সরে না গেলে হয়ত তাকে মেরে ফেলতে।

ঘটনাটি জানাজানি হলে স্থানীয় সাংবাদিকরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে এই ঘটনার তিব্র নিন্দা জানান।

ঘটনা প্রসঙ্গে সাংবাদিক কুদ্দুস বিশ্বাস বলেন, ওটা আমার ব্যক্তিগত অফিস কাম ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।সেখানে হামলার পর অফিসে তালা লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে।তিনি আরও বলেন, কুরিয়ার সার্ভিসের কিছু জরুরি ডকুমেন্ট ডেলিভারি করতে অফিস খোলার সঙ্গে সঙ্গে মন্ত্রীর ভাই মারুফ আহমেদ সিক্ত মন্ডলের নির্দেশে সাইদুর, হাবিবুর, হাফিজ, জোব্বারসহ ১৫/১৬ জনের বাহিনী ওই ঘরে হামলা চালায়।

রৌমারী থানার ওসি মোনতাছির বিল্লাহ বলেন, ঘটনাটি শোনার পরপরই আমি ফোর্স পাঠিয়েছি।সাংবাদিক লিখিত অভিযোগ দিলে মামলা নেওয়া হবে।

এবিষয়ে প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেনের বক্তব্য নেওয়ার জন্য তার ব্যক্তিগত মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও কথা বলা সম্ভব হয় নি।তার ব্যক্তিগত সহকারীকে ফোন দিলে তিনিও ফোন রিসিভ করে নি।